সহযাত্রী
মোঃইসহাক আলী

বিদায়ের মাদল বাজিয়ে ছুটে চললে
অজানা সুদূরের পথে
ধূলিসাত্‌ করে আমার সাজানো স্বপ্নকে
ঘর বাঁধার স্বপ্নকে,বেঁচে থাকার স্বপ্নকে ৷
এ জীবনে তোমার ন্যায় পাইনি কারো উষ্ণ আদর ভালবাসা
প্রারম্ভেই এ হৃদয় উত্তপ্ত চোখ রাঙ্গানো শাসনের দহনে পুরেছে ৷
ভয়ে আতঙ্কে ঝরিয়েছে অফুরান লোনাজল ৷
অতঃপর ,
মেঘ কন্যার কান্দন দেখে
বিষন্নতায় কেটেছে দিবারাত্রি গুলি
অশ্রুবানে ভেসেগেছে চারিপাশ ভেসেছি আমি ৷
সে জলে কাশ গুঁজে চুলে আসে শারতী !
ও স্বচ্ছ রুপ আমার প্রথম ভাললাগা,
তার ক্ষণে ক্ষণে উছলে উঠা অভিমান
কিছুটা ভালবাসার ও জন্ম দিয়েছিল ৷
তাকে বুঝতে না বুঝতেই কোথায় হারিয়ে গেল যেন !
তার বিরহে,মন ভেঙ্গে পরার ক্ষণে এ মনে উঁকি দিল হেমন্তী
আবার বুক ভরেগেল অদৃশ্য অনুভবে ৷
কিন্তু তার অবহেলা অবজ্ঞা আর কর্ম-ব্যস্ততা
আমায় না পাওয়ার দহনে পুরল ক্ষণকাল ৷
শীতলা সে বুকফাটা কান্নাকে কুয়াশার চাদরে ঢেকে দিল নিরবতায় ৷
তার রুক্ষ স্পর্শে হৃদয়ের সবুজ সতেজ স্বপ্ন গুলো ঝরে পড়ল একে একে ৷
চারিদিক্‌ আঁধার হয়ে এলো
দম বন্ধ হয়ে এলো আমার ৷
এমতাবস্থায় তুমি এলে ,
স্বপ্ন রঙীন শাড়ী পড়ে হে হাস্যময়ী বাসন্তী
চারিপাশ ভরে উঠল পুষ্পে-পুষ্পে
অলিরা মুহুর-মুহু গন্ধে গাইল গান ৷
ঝরেপড়া স্বপ্ন গুলো হয়ে উঠলো প্রাণবন্ত ৷
তোমার ভালবাসায় এ জীবন পূর্ণতা পেল
তোমার স্পর্শে মনে জাগ্রত হল বেঁচে থাকার স্বাদ
ঘর বাঁধার ইচ্ছা ৷
তোমার মাঝে খোঁজে পেলাম আমার আমিকে!
অথচ সেই তুমি বাসন্তী ,
আজ আমায় ছেড়ে চললে পরপাড়ে !
নাহ্ তুমি একা নও
আমিও সাথী হবো তোমার ৷
বিদায় পৃথিবী বিদায়
ভুলে যেও এই আমায় ,
শুধু স্মৃতি গুলো বুকে আগলে রেখ ৷