ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকায় এক বছর নিষিদ্ধ হয়েছেন পাকিস্তানি পেসার মোহাম্মদ ইরফান। পাকিস্তান সুপার লিগে ম্যাচ গড়াপেটার সুনির্দিষ্ট প্রমাণের ভিত্তিতে তাঁকে নিষিদ্ধ করল দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। এর আগে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে সাময়িক নিষিদ্ধ করা হয় তাঁকে।

গত সপ্তাহে পিসিবি ট্রাইব্যুনালের সামনে হাজির হয়ে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কথা স্বীকার করেন ইরফান। তিনি জানান, বেশ কয়েকবার জুয়াড়িদের কাছ থেকে তিনি ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পান তিনি। তবে নিজে ম্যাচ ফিক্সিং করেননি বলেও জানান এই দীর্ঘদেহী বোলার। অন্যায় প্রস্তাব পেয়ে কর্তৃপক্ষকে না জানানোর অপরাধে তাঁকে দোষী সাবস্ত্য করেন ট্রাইবুনাল।

আত্মপক্ষ সমর্থনে ইরফান দাবি করেন সময়ের অভাবে বোর্ডকে কিছু জানাতে পারেননি তিনি। কারণ গত বছরের সেপ্টেম্বরে তাঁর বাবা মারা যান। এই সময় মানসিক অবস্থা ভালো ছিল না তাঁর। আর এই বছর জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া সফরে থাকার সময় তাঁর মা মারা যান।

এর আগে পিএসএলের এবারের আসরে ম্যাচ গড়াপেটার দায়ে সাময়িক নিষিদ্ধ হন শারজিল খান ও খালিদ লতিফ। পিএসএল শুরুর পরেই তাঁদের পাকিস্তানে ফেরত পাঠানো হয়। পেশোয়ার জালমির বিপক্ষে ম্যাচে চার বলে মাত্র এক রান করেন শারজিল। তার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে, বেশ দৃষ্টিকটুভাবে আউট হন এই ব্যাটসম্যান। খালিদ লতিফের ফোন ও ল্যাপটপ তদন্ত করে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের আলামত পাওয়া গেছে।

২০১০ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ার পর পাকিস্তানের হয়ে ৪ টেস্ট, ৬০ ওয়ানডে ও ২০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন ইরফান।